ডাকসুর সাবেক ভিপি ও গণঅধিকার পরিষদের সদস্য সচিব নুরুল হক নুর বলেছেন, ‘এই সৈরাচার সরকারের পতন ঘটাতে হলে এদেশের ছাত্র য,বকসহ আপামর জনতাকে মাঠে নামতে হবে। আমরা সংঘাত চাই না, শান্তি চাই। সংঘাত চাই না, সম্প্রীতি চাই। কিন্তু এই দেশের মাফিয়া সরকার জনগণকে সংঘাতের দিকে ঠেলে দিচ্ছে।’

রোববার (২৭ মার্চ) বিকেলে রাজধানীর পল্টনের বিজয়নগর এলাকায় এক বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশে তিনি এসব কথা বলেন। গতকাল শনিবার (২৬ মার্চ) স্বাধীনতা দিবসে শ্রদ্ধা নিবেদন কর্মসূচিতে শেরপুর, গাইবান্ধা, বগুড়া ও চট্টগ্রামসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে ছাত্র ও যুব অধিকার পরিষদের নেতা-কর্মীদের উপর হামলার প্র তিবাদে এ বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশের আয়োজন করে গণ অধিকার পরিষদ।

নুর বলেন, ‘আমরা সরকারকে বলতে চাই, জনগণ যদি রাস্তায় নামে তবে আপনারা হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে মা রা যাবেন। আপনারা যেভাবে মানুষের ওপর অত্যাচার নির্যাতন চালাচ্ছেন, প্রত্যেকটা মানুষ আপনাদের নির্যাতনের শিকার। মান,ষের পিঠ দেওয়ালে ঠেকে গেছে। আমরা যদি রাস্তায় নামি তবে পা কিস্তানিদের যেভাবে বিতারিত করা হয়েছিল, আওয়ামীলীগকেও এই এই দেশ থেকে সেভাবে বিতারিত করা হবে।’

বিক্ষোভ সমোবেশে সভাপতির বক্তব্যে গণঅধিকার পরিষদের আহ্বায়ক ড. রেজা কিবরিয়া বলেন, ‘গতবছর মোদি বিরোধী আন্দোলনের সময় এই সরকার তাদের পেটোয়া বাহিনী দিয়ে আমাদের একজন কর্মীকে হ ত্যা করেছে। আজকে সেই দিবস। সেদিন প্রায় দুই হাজার আলেম ওলামা মামলা হামলার শিকার। আমরা আর হত্যা দিবস পালন করতে চাই না। আমরা পালন করতে চাই শেখ হাসিনার পতন দিবস।’

সমাবেশে গণ অধিকার পরিষদের যুগ্ন আহ্বায়ক রাসেদ খান বলেন, ‘এই শেখ হাসিনা সরকার জনগণের ওপর হামলা করে, মামলা করে, নিপিড়ন চালিয়ে ক্ষমতায় টিকে থাকতে চায়। আমরা বলতে চাই এসব হামলা মামলা করে সৈরাচার এরশাদ ক্ষমতায় থাকতে পারেনি, আপনারাও পারবেন না।’

এরআগে ড. রেজা কিবরিয়ার নেতৃত্বে একটি বিক্ষোভ মিছিল পল্টন বিজয়নগর এলাকা থেকে শুরু হয়ে কাকরাইল মোড় হয়ে পানির ট্যাংকি এলাকায় এসে সমাবেশের মধ্যদিয়ে শেষ হয়। বিক্ষোভ মিছিলে আরও উপস্থিত ছিলেন, সিনিয়র যুগ্ন আহ্বায়ক ফারুক হাসান, শাকিল উজ্জামান, শহিদুল ফাহিম, মাহফুজ জামান খান, সোহরাব হোসেন প্রমুখ।

By admin

Leave a Reply

Your email address will not be published.