চট্টগ্রামের লোহাগাড়া উপজেলায় ধারালো দা দিয়ে কুপিয়ে প,লিশ কনস্টেবলের হাত থেকে কবজি বিচ্ছিন্ন করে পালিয়ে গেছেন এক আসামি। ওই আসামি তার বিরুদ্ধে দায়ের করা মামলার বাদীকেও কুপিয়ে আহত করেন। রোববার সকালে উপজেলার পদুয়া ইউনিয়নের ৯ নম্বর লালারখিল ওয়ার্ডে এ ঘটনা ঘটে। চট্টগ্রামের পুলিশ সুপার (এসপি) এস এম রশিদুল হক জানিয়েছেন, আহত পুলিশ কনস্টেবল জনি খানকে প্রথমে লোহাগাড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়া হয়। পরে সেখান থেকে তাকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। পলাতক আসামি কবির আহামদ (৩৫) লোহাগাড়ার পদুয়া ইউনিয়নের লালারখীল গ্রামের মৃত আলী হোসেনের ছেলে। লালারখিল গ্রামে দু’পক্ষে মারামারির ঘটনায় গত ২৪ মার্চ দায়ের হওয়া একটি মামলার এজাহারভুক্ত দুই নম্বর আসামি কবির। লালারখিল গ্রামের বাসিন্দা আবুল হোসেন কালু দণ্ডবিধির ১৪৩, ৪৪৭, ৩০৭, ৩২৫, ৩২৩, ৩২৪, ৪৪৮, ৩৮০, ৪২৭, ৫০৬ ধারায় মামলাটি দায়ের করেছিলেন। সকালে মামলার আসামি কবিরকে ধরতে লোহাগাড়া থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) ভক্ত চ ন্দ্র দত্তের নেতৃত্বে চার সদস্যের একটি টিম তার বাড়িতে যায়। টিমের অন্য সদস্যরা হলেন- সহকারী উপ-পরিদর্শক (এএসআই) মুজিবুর রহমান, কনস্টেবল জনি খান ও শাহাদাত হোসেন। বাড়িতে ঢুকে অভিযান শুরুর পর কবিরকে প্রায় ধরে ফেলেছিল পুলিশ সদস্যরা। এসময় তিনি কনস্টেবল জনি খানের বাম হাতে ধারালো দা দিয়ে কোপ মারে। এতে জনি খানের বাম হাত থেকে কবজি বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। তখন কবির পালিয়ে যেতে সক্ষম হয়। অভিযানে পুলিশের সঙ্গে মামলার বাদী আবুল হোসেন কাল,ও ছিলেন। আসামি কবির যাবার সময় তাকেও দা দিয়ে কোপ মারে। এতে আবুল হোসেনও আহত হন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.